ঢাবি “খ”ইউনিটের ভর্তি প্রস্তুতি ; সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য চাই সেরা প্রস্তুতি

Share This News

মানবিক বিভাগ থেকে উত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীর  লক্ষ্য থাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় “খ” ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে প্রাচ্যের অক্সফোর্ডের নামে পরিচিত বিশ্ববিদ্যালয়ের  একটি  আসন দখলের। করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই শুরু হবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি যুদ্ধ আর ভর্তি যুদ্ধে অংশগ্রহণ করবে হাজারো শিক্ষার্থী আর এই হাজারো শিক্ষার্থীর মাঝে তোমাকে নিশ্চিত করতে হবে তোমার একটি আসন। ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য সবাই কমবেশি প্রস্তুতি নিয়ে থাকে আবার কেউ ভর্তি প্রস্তুতি ভালো করার জন্য বিভিন্ন কোচিং সেন্টারে  দ্বারস্থ হয়ে থাকে। তবে কিছু ধারাবাহিকতা অবলম্বন করলে ভর্তি পরীক্ষায় ভালো করা সম্ভব।

“খ”ইউনিটের ভর্তি প্রস্তুতির ধারাবাহিকতা জানার আগে আমরা জেনে নিই “খ” ইউনিটের প্রশ্নের মানবন্টন-

এ বছর এইচএসসি পরীক্ষা না হওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নের মানবন্টনে  এসেছে কিছুটা পরিবর্তন

এই বছরের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে মোট ১২০ নম্বরের। এই ১২০ নম্বরের মধ্যে  ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ১০০ নম্বরের আর এসএসসি ও এইচএসসি জিপিএ নাম্বারের উপর থাকবে 20 নম্বর।

 ভর্তি পরীক্ষায় ১০০ নম্বরের মধ্যে পাশ নম্বর থাকবে ৪০ নম্বর।

জিপিএর উপর ২০ নম্বর গননা করা হবে যেভাবে –

 মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-কে ২ দিয়ে এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রাপ্ত জিপিএ-কে ২ দিয়ে গুণ করে এই দুইয়ের যােগফল ২০ নম্বরের ভর্তি-পরীক্ষায় প্রাপ্ত  নম্বরের সাথে যােগ করা হবে।

এবার আমরা দেখিনি বিষয়ভিত্তিক নম্বরবন্টন –

খ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় বহুনির্বাচনী (MCQ) পরীক্ষার মান বন্টন-

বিষয়নম্বরপ্রশ্ন
বাংলা / Elective English*১৫১৫
General English১৫১৫
সাধারণ জ্ঞান৩০৩০
মােট নম্বর = ৬০মােট প্রশ্ন = ৬০

ভর্তি পরীক্ষায় প্রতিটি বহুনির্বাচনী প্রশ্নের জন্য থাকবে ১ নম্বর আর প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য কর্তন করা হবে ০.২৫ নম্বর।

খ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার লিখিত অংশের মান বন্টন-

লিখিত পরীক্ষার মান বন্টন-

ভর্তি পরীক্ষায় লিখিত অংশে ৪০ নম্বরের পরীক্ষা হবে।

বিষয়নম্বর
বাংলা / Elective English*২০
General English২০
মোট নম্বর৪০

আমরা উপরে জানতে পারলাম প্রশ্নের মান বন্টন সম্পর্কে এবার আমরা ভর্তি প্রস্তুতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানব।

বিষয়ভিত্তিক পাশনম্বর-

ভর্তি পরীক্ষায় MCQ অংশে একজন শিক্ষার্থীকে নূন্যতম বিষয়ভিত্তিক পেতে হবে-

বাংলায় ন্যূনতম ০৫ নম্বর, 

English-এ ন্যূনতম ০৫ নম্বর, 

সাধারণ জ্ঞানে ন্যূন্যতম ১০ নম্বর 

 ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে তিনটি বিষয়ে মোট ১০০ নম্বরের উপরে।

 এই তিনটি বিষয়ের মধ্যে রয়েছে-

 বাংলা

 ইংরেজি

 সাধারণ জ্ঞান

 বিষয়ভিত্তিক “খ” ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি-

 বাংলা বিষয়ে ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি-

প্রথম পত্রের জন্য বাংলা বোর্ড কর্তৃক প্রণিত বইটি এবং দ্বিতীয় পত্রের জন্য নবম-দশম শ্রেণির বাংলা ব্যাকরণ বইটির উপর বিশেষভাবে ফোকাস করে প্রস্তুতি নাও।এছাড়া বিগত বছরে প্রশ্ন সম্পর্কে ধারণা নিতে যে কোন প্রশ্নব্যাংক অনুসরণ করও।

লিখিত অংশের জন্য যে সকল বিষয়ে অধিক গুরুত্ব দিতে হবে-

মূলভাব লিখন, কবিতার উদ্ধৃতি ব্যাখ্যা, উদ্ধৃত সংলাপ ব্যাখ্যা (গদ্য, উপন্যাস ও নাটক-ভিত্তিক), লেখক / কবি পরিচিতি, মিলকরণ (গদ্য, কবিতা ও ব্যাকরণভিত্তিক), সারাংশ / সারমর্ম লিখন, বানান শুদ্ধি ও প্রমিতকরণ, সংক্ষিপ্ত অনুচ্ছেদ লিখন, ব্যাকরণ-সম্পর্কিত বিষয়াবলি (সংজ্ঞার্থ ও দৃষ্টান্ত) এবং অনুবাদ অধিক গুরুত্ব দিতে হবে।

মনে রাখতে হবে পাঠ্য বইকে প্রথমে গুরুত্ব দিতে হবে।

ইংরেজি বিষয়ের উপর গুরুত্ব-

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক  শ্রেণীতে ইংরেজি  গ্রামার বিষয়ে যে সকল টপিক পড়ানো হয়েছে সেগুলো সম্পর্কে মোটামুটি ভালো ধারণা থাকলে প্রশ্নের উত্তর দেওয়া সহজ হবে। এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের “খ” ইউনিটের যেকোন প্রশ্ন ব্যাংক থেকে ভর্তি পরীক্ষার জন্য অনুশীলন করলে মোটামুটি প্রশ্ন সম্পর্কে ভালো ধারণা তৈরি হবে।

এছাড়া  বহুনির্বচনের জন্য যে সকল বিষয়ের উপর বিশেষভাবে গুরুত্ব দিতে হবে-

Vocabulary Knowledge বাড়াতে হবে, Agreement of the verb with the subject,Tag question,Canditionals,Countable and Uncountable Noun,Comparison of adjective and adverb,Position of adverbs,Number ,Conjunctions,Modifiers,Possessive pronoun,Phrases and Idioms ,preposition ,Word-Analysis ,Antonyms,Spelling 

খ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষার জন্য যে সকল বিষয়ের উপর বিশেষভাবে গুরুত্ব দিতে হবে-

omprehension, Short paragraph, Explanation (Explain with the reference to the Context), Rearranging, Translation, Punctuation, Gap filling with & without clues, Sentence making, Changing and Transformation of sentences অধিক গুরুত্ব দিতে হবে।

সাধারণ জ্ঞানের ভর্তি প্রস্তুতি-

সাধারণ জ্ঞান অংশে ভালো করতে হলে আন্তর্জাতিক বিষয়বলী ও বাংলাদেশ বিষয়বলী সম্পর্কে প্রশ্ন করা হবে।

যে বিষয়গুলোর উপর ফোকাস দিতে হবে –

মাধ্যমিক / সমমান ও উচ্চ-মাধ্যমিক / সমমান পর্যায়ে পঠিত পৌরনীতি ও সুশাসন, সমাজবিজ্ঞান, অর্থনীতি, ইতিহাস, যুক্তিবিদ্যা, ভূগােল, তথ্য ও যােগাযােগ প্রযুক্তি প্রভৃতি বিষয়ের উপর গুরুত্ব দিতে হবে।

সাধারণ জ্ঞান বিষয়ে নিজেকে আরেকটু দক্ষ করে নাও নিচের টপিকগুলোর উপর ফোকাস করে-

ক) প্রত্যেক পরীক্ষার্থীর একটি করে জিকের জন্য ভালো মানের গাইড বই থাকতে হবে। 

খ) নিয়মিত জাতীয় পত্র-পত্রিকা পড়তে হবে এবং  খাতায় গুরুত্বপূর্ণতথ্যগুলো লিখে রাখতে হবে।

গ) প্রতি মাসে কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স / সাম্প্রতিক ক্যাপসুল পড়তে হবে। 

ঘ) নিয়মিত BBC ও VOA- এর খবর শুনতে পারো। 

 এবং সেগুলো থেকে প্রয়োজনীয় তথ্যলিখে রাখতে হবে। সর্বোপরি সাধারণ জ্ঞান একটি বিশাল এবং বিস্তৃত বিষয়। এর কোন নির্দিষ্ট সিলেবাস নেই। এই বিষয়ে দক্ষতা অর্জনের জন্য দীর্ঘসময় ধরে এই কয় মাস পড়তে হবে। 

ঙ)  ছয় মাসের সাম্প্রতিক জিকে + এই বছর ভর্তি পরীক্ষার  জন্য গুরুত্বপূর্ণ জিকের টপিকগুলোর জন্য  দেখতে পারো

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মানবিক বিভাগে  মোট অনুষদ ১০ টি ।এই ১০ টি অনুষদে মোট শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে ২৩৬৩।

সর্বশেষ কথা-

মানবিক বিভাগের বেশির ভাগ শিক্ষার্থীর লক্ষ্য থাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মানবিক  শিক্ষা অনুষদ। আসন সীমিত থাকায় ভর্তির জন্য রীতিমতো যুদ্ধ করতে হয় শিক্ষার্থীদের। যদিও পরীক্ষাকেন্দ্রে প্রত্যেক শিক্ষার্থীই কিছুটা নার্ভাস বোধ করে। খুব বেশি চিন্তা না করে তোমাদের  উচিত হবে মাথা ঠান্ডা রেখে পরীক্ষা দেওয়া। এ ছাড়া কোনো প্রশ্নের ব্যাপারে একেবারে অনিশ্চিত থাকলে তা উত্তর না করাই ভালো। কারণ, প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য নম্বর কাটা যায়।

তোমাদের এই যাত্রা শুভ হোক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি আসন তোমারই হোক।


Share This News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *