ডায়েবেটিকস রোগীর সকালের নাস্তা

Share This News

দীর্ঘ মেয়াদী একটি রোগের নাম ডায়েবেটিস।এই  রোগ সুস্থ না হলেও, ইচ্ছা থাকলে এটিকে নিয়ন্ত্রন করা সম্ভব।আর ডায়েবেটিস রোগটিকে নিয়ন্ত্রনে করতে সবচেয়ে যে বিষয়টির উপর গুরুত্ব দিতে হবে তা হলো খাদ্য অভ্যাস।একজন ডায়েবেটিস রোগী খাদ্য অভ্যাসের উপর যত বেশি গুরুত্ব দিবে ব্যাক্তির ডায়েবেটিস তত নিয়ন্ত্রনে থাকবে।

স্বাস্থ্য বিষয়ক তথ্য পেতে ভিজিট করুন- স্বাস্থ্য কথা

আরো পড়ুন-

কিডনি রোগ থেকে বাঁচতে মেনে চলুন কিছু পরামর্শ

মুখের ঘায়ের ঘরোয়া প্রতিকার

ঘরোয়া পদ্ধতিতে দাঁতের হলদে ভাব দূর করার উপায়

ডায়েবেটিস  রোগীদের সকালের নাস্তা কী হবে? কি থাকবে ডায়েবেটিস রোগীর সকালের খাদ্য তালিকায়?

আমরা মোটামুটি এই বিষয়ে আজকে আপনাদের জানাবো আমাদের স্বাস্থ্যকথা।

তবে আমাদের স্বাস্থ্য কথার আজকের বিষয় “ডায়েবেটিস রোগীর সকালের নাস্তা কী হবে?”

এই বিষয়টি শুরু করার আগে, আপনাদেরকে ছোট্ট একটি বার্তা দিতে চাই সেটি হলো ডায়েবেটিস রোগীর রোগকে নিয়ন্ত্রন করতে সবচেয়ে বেশি যে বিষয়টি ভূমিকা পালন করে সেটি হলো ডায়েবেটিস রোগীর স্বইচ্ছা।

ডায়েবেটিস রোগীদের খাদ্য তালিকা যে খাবার গুলো কম পরিমাণ থাকবে সেটি হলো শর্করা জাতীয় খাবার।আর শর্করা জাতীয় খাবার চেনার উপায় যে খাবার গুলো খেতে মিষ্টি লাগে সে খাবার গুলোই শর্করা জাতীয় খাবার।

যে খাবার গুলো বেশি খাবে শাক সবজি টক জাতীয় ফল ও অন্যান্য উপাদান যেগুলোতে শর্করার পরিমান খুবই কম থাকবে।

একজন ডাক্তারের মতে একজন ডায়েবেটিস রোগীর জন্য সকালের নাস্তা কেমন হওয়া চাই আমরা এখন সেই বিষয় নিয়ে কথা বলবও-

সকালের নাস্তা হওয়া চাই সুষম খাবার।যে খাবারে থাকবে প্রোটিন, চর্বি ও অল্প পরিমাণের  শর্করা।

সকালের নাস্তা যা থাকতে পারে-

  • এক বাটি ওটমিল তৈরি করুন। শস্যখাদ্য বেশি হয়ে যায় সহজেই, তাই কতখানি নিলেন তা বেশি গুরুত্বপূর্ণ।তাছড়া বর্তমানে বাজারে ওট পাওয়া যায় বিভিন্ন কোম্পানির সেগুলো খেতে পারেন।ওট একটি সুষম খাবার।তবে এক্ষেত্রে ওটের পরিমাণের বিষয়টি লক্ষ্য রাখতে হব। ডায়েবেটিস রোগীকে অল্প অল্প করে বারে বারে খাব্র দিতে হবে যাতে হজম প্রক্রিয়া ভালো হয়।
  • সকালের নাস্তা হিসাবে দিতে পারেন ডিমের সাদা অংশ, যে কোন শাক অথবা সবজি, একটি আটার রুটি ( ছোট হলে দুটি) তবে বলে রাখা ভালো গম থেকে উৎপাদিত আটা সবচেয়ে ভাল, অল্প  পরিমানের ফল।
  • দুই স্লাইস গমের রুটি এবং পিনাট মাখন দিয়ে তৈরি স্যান্ডউইচ খাওয়া যায়।
  • এক পিস পাউরুটি সাথে ডিমের সাদা , সবজি ও অল্প পরিমানের ফল। প্রতি সপ্তাহে চারটি ডিমের বেশি খাওয়া ঠিক না।
  • সকালের নাস্তা হিসাবে খতে পারে টক দই, বাদাম, ও ফল।
  • খই, মুড়ি, পপকর্ন ও ননিহীন দুধ সকালের নাস্তার তালিকা রাখা যায়।
  • সকাল বেলা যেকোন আঁশযুক্ত খাবার রাখতে পারেন খাদ্যা তালিকা, যা কিনা আপনার ডায়েবেটিসকে রাখে সুনিয়ন্ত্রিত

Share This News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *