জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রাথমিক বাছাইয়ের নামে বাড়তি ফি আদায়

Share This News

বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় আবেদনের ভর্তি ফরমের মূল্য বৃদ্ধি ও প্রাথমিক বাছাইয়ের নামে বাড়তি  ফি  আদায় করা প্রতিবাদ জানায়। তারা এ বিষয়ে জানায় প্রাথমিক বাছাই নামে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ সীমিত করার সিদ্ধান্তের ব্যাপারে তারা প্রতিবাদ জানায়।

ছাত্র ইউনিয়ন  ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের  নেতৃবৃন্দ বিবৃতির মাধ্যমে এই প্রতিবাদ জানায়।

 বিবৃতিতে বলে,

করোনা মহামারিতে সবচেয়ে বিপর্যস্ত শিক্ষা খাত। দীর্ঘ অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন যাপন করছেন শিক্ষার্থীরা। একদিকে মানসিক চাপ, অন্যদিকে অর্থনৈতিক চাপ—সবকিছু মিলিয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন বিপন্ন। এরই মধ্যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা পরিচালনা কমিটি ভর্তি ফরমের মূল্য বৃদ্ধি করে প্রতি ইউনিটে ১ হাজার ১০০ টাকা এবং ইনস্টিটিউটগুলোর জন্য ৭০০ টাকা ধার্য করেছে। আগের বছরও এই ফি ছিল যথাক্রমে ৬০০ ও ৪০০ টাকা।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, এ বছর করোনার কারণে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। ফলে প্রকৃত অর্থে শিক্ষার্থীদের মেধার মূল্যায়ন অপূর্ণাঙ্গ রয়ে গেছে। তার ওপর ভিত্তি করে যদি আবার বাছাই করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়, এটা একদিকে যেমন তাঁদের প্রতি অবিচার করা হবে, অন্যদিকে অহেতুক জটিলতায় অনেক যোগ্য শিক্ষার্থীরও পরীক্ষা দিতে না পারার আশঙ্কা তৈরি হবে।

এ অবস্থায় ভর্তি ফরমের মূল্য সর্বোচ্চ ৩০০ টাকা এবং ফলাফলের ভিত্তিতে বাছাই করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে সংগঠন দুটি।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি ফরমের মূল্য বৃদ্ধি ও বাছাই করার নামে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ সীমিত করার সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ ও সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন ও সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের বিশ্ববিদ্যালয় শাখা। আজ শুক্রবার সকালে পৃথক বিবৃতিতে তারা এ প্রতিবাদ জানায়। ছাত্র ইউনিয়নের বিবৃতিতে সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তুষার ধর ও সাধারণ সম্পাদক রাকিবুল হকের স্বাক্ষর ছিল। আর ছাত্র ফ্রন্টের বিবৃতিতে স্বাক্ষর ছিল সভাপতি শোভন রহমান ও সাধারণ সম্পাদক আবু সাইদের।

বিবৃতিতে বলা হয়, করোনা মহামারিতে সবচেয়ে বিপর্যস্ত শিক্ষা খাত। দীর্ঘ অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন যাপন করছেন শিক্ষার্থীরা। একদিকে মানসিক চাপ, অন্যদিকে অর্থনৈতিক চাপ—সবকিছু মিলিয়ে শিক্ষার্থীদের শিক্ষাজীবন বিপন্ন। এরই মধ্যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ভর্তি পরীক্ষা পরিচালনা কমিটি ভর্তি ফরমের মূল্য বৃদ্ধি করে প্রতি ইউনিটে ১ হাজার ১০০ টাকা এবং ইনস্টিটিউটগুলোর জন্য ৭০০ টাকা ধার্য করেছে। আগের বছরও এই ফি ছিল যথাক্রমে ৬০০ ও ৪০০ টাকা।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, এ বছর করোনার কারণে এইচএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়নি। ফলে প্রকৃত অর্থে শিক্ষার্থীদের মেধার মূল্যায়ন অপূর্ণাঙ্গ রয়ে গেছে। তার ওপর ভিত্তি করে যদি আবার বাছাই করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়া হয়, এটা একদিকে যেমন তাঁদের প্রতি অবিচার করা হবে, অন্যদিকে অহেতুক জটিলতায় অনেক যোগ্য শিক্ষার্থীরও পরীক্ষা দিতে না পারার আশঙ্কা তৈরি হবে।

এ অবস্থায় ভর্তি ফরমের মূল্য সর্বোচ্চ ৩০০ টাকা এবং ফলাফলের ভিত্তিতে বাছাই করে ভর্তি পরীক্ষা নেওয়ার সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে সংগঠন দুটি।


Share This News

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *